১০ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২৭শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ


ফেনী পৌরসভার তদারকিতে তৈরী হচ্ছে বর্জ্য থেকে জৈবসার –

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ
দেশের গুরুত্বপূর্ণ জেলা ফেনী নান্দনিক ভাবে সাজানোর পর এবার গুরুত্ব দিয়া হচ্ছে নানাবিধ ইতিবাচক কাজে। তারই ধারাবাহিকতায়
ফেনী শহরের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা বর্জ্য ভাগাড়ে না রেখে সেখান থেকে সার উৎপাদন শুরু করেছে সেবক এগ্রোভেট লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান। উৎপাদিত এসব সার প্রতিকেজি বিক্রি হবে ৪৫ টাকা মূল্যে। ফলে একদিকে যেমন শহরে আবর্জনার উৎকট দূর্গন্ধ থেকে রেহাই পাবেন নাগরিকরা অন্যদিকে আগামী তিন বছর পর এ খাত থেকে পৌরসভাও আয় করতে পারবে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় , ফেনী শহরের সুলতানপুর এলাকায় ৭০শতক জমিতে জৈবসার উৎপাদন কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়। সেখানে ১১ হাজার ৬শ বর্গফুটের শেডে ১৯টি আবর্জনা রাখার হাউজ রয়েছে। প্রতিটি হাউজেই রয়েছে কমবেশী বর্জ্য। কয়েকজন শ্রমিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় কাজ করছেন। একজন ভ্যানগাড়ী থেকে বর্জ্য নামাচ্ছেন। দুইজন বাইরে বসে পলিথিন সহ অপচনশীল বর্জ্য বাছাই করছেন। কোম্পানীর ম্যানেজার (অপারেশন) নুরুল আবছার তাদের দেখভাল করছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, অপরিকল্পিত নগরায়নের কারণে দীর্ঘদিন ধরে ফেনী শহরের প্রবেশপথ দেওয়ানগঞ্জ, বিসিক রাস্তার মাথা সহ বিভিন্ন স্থানে সড়কের পাশে বর্জ্য স্তুপ করা হতো। দ্রুত ও আধুনিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় ‘জৈব আবর্জনা ব্যবহার করে প্রোগ্রামেটিক সিডিএম-২য় প্রকল্প’ নামে একটি প্রকল্প অনুমোদন করে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন পরিবেশ অধিদপ্তর। জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্টের অর্থায়নে ১ কোটি ৫৬ লাখ ৮৪ হাজার ৮৭ টাকা বরাদ্ধে প্রায় তিন বছর আগে ২০১৮ সালের ৭ অক্টোবর সার উৎপাদন কেন্দ্রের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করা হয়। পরিবেশ অধিদপ্তরের ক্লিন ডেভেলপমেন্ট মেকানিজম (সিডিএম) ও ফেনী পৌরসভা এটি নির্মাণে তদারকী করছেন। সেবক এগ্রোভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক খালেদ আমিন জানান, গত ১৫ জুলাই থেকে তার প্রতিষ্ঠান সার উৎপাদন শুরু করেছে। প্রতিদিন এ প্ল্যান্টে ৮টন বর্জ্য থেকে ১ টন সার উৎপাদন করা যাবে। কিন্তু পৌরসভা কর্তৃপক্ষ প্রতিদিন শুধুমাত্র ১টন বর্জ্য সরবরাহ করছে। ফলে এখন প্রতিদিন ২শ কেজির কিছু বেশি পরিমাণ সার উৎপাদন হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে বর্জ্য অনুপাতে সারের পরিমাণও বাড়বে। সার তৈরিতে ব্যবহার হচ্ছে ১টি কাটিং, ১টি নেটিং ও ১টি ক্রাশিং মেশিন। তিনি আরো জানান, কক্সবাজারে সার উৎপাদন কেন্দ্রটিও সেবক এগ্রোভেট লিমিটেডের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত করেন। এছাড়া চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে ছোট পরিসরে তার নিজস্ব সার কারখানা রয়েছে। অতীত অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সুলতানপুর জৈব সার কারখানাও লাভজনক করতে পারবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। প্যাকেটজাত করে বাজারজাত করা হবে। ফেনী পৌরসভা সূত্র জানায়, প্রতিদিন ফেনী পৌরসভায় ৭০ থেকে ৮০ টন বর্জ্য বের হয়। এসব বর্জ্য থেকে পঁচনশীল দ্রব্য ও অপচনশীল দ্রব্য আলাদা করে প্রকল্পে ব্যবহার করা হবে। ফেনীতে নির্মাণাধীন প্রকল্পের ধারণ ক্ষমতা দৈনিক ৮ টন। তারা এখান থেকে উৎপাদিত জৈব সার সরাসরি কৃষকের কাছে বিক্রি করে এর চাহিদা তৈরী করবেন। এছাড়া তারা এখানে স্থায়ীভাবে জনবল তৈরীর জন্যেও কাজ চালিয়ে যাবেন। ফেনী পৌরসভার সচিব সৈয়দ আবু জর গিফরী জানান, সম্প্রতি ফেনী পৌরসভা, পরিবেশ অধিদপ্তর ও সেবক এগ্রোভেট লিমিটেডের সাথে যৌথ চুক্তি স্বাক্ষর হয়। চুক্তি অনুযায়ী পৌরসভা সার উৎপাদন কেন্দ্রে বর্জ্য সরবরাহ করবে। আগামী তিন বছর সেবক এগ্রোভেট লিমিটেড সার উৎপাদন করার পর পৌরসভা কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে দিবে। এরপর পৌরসভা তার নিজস্ব জনবল দিয়ে সার উৎপাদন করে আয় বাড়াতে পারবে। ফেনী পৌরসভার মেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী বলেন, বর্জ্য থেকে সার উৎপাদন প্রকল্পের মাধ্যমে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা ও আবর্জনা থেকে বাণিজ্যিকভাবে আয় করা সম্ভব। একসময়ে ময়লার দুর্গন্ধে পরিবেশ দূষিত হয়ে থাকত। সার উৎপাদন পুরোদমে চালু হলে দৃশ্যপট বদলে যাবে। ফেনীর আপাময় জনগন এ সকল কাজকে ইতিবাচক বলে মন্তব্য করেছেন।

ব্রেকিং নিউজ :
অগ্রণী ব্লাড ফাউন্ডেশন’র কার্যকরী কমিটি গঠন শহীদ পাটোয়ারী সভাপতি, শেখ ফরিদ সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত ফরহাদ নগর ভোর বাজারের জুয়েলারী ব্যবসায়ী সোহাগ কোটি টাকা নিয়ে উধাও – ফেনী সিটি গার্লস হাই স্কুলের কৃতি সংবর্ধনা ও পুরস্কার বিতরণ ফেনীর বোগদাদীয়ায় বালুবাহী ট্রাকের ধাক্কায় এসএসসি পরীক্ষার্থী নিহত- বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায় আলোকিত ফেনী বৃত্তি পরীক্ষা সম্পন্ন- ফেনীতে নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও বিশুদ্ধ বায়ুর প্রসারে জলবায়ু সংলাপ- সোনাগাজী লাইনে বাড়তি সিএনজি ভাড়া আদায়ের সংবাদে তাৎক্ষণিক ব্যবস্হা নিলেন চেয়ারম্যান বাদল ওমরাহ পালনে সৌদি যাচ্ছেন ফেনীর সাংবাদিক শাহজালাল ভূঞা ফেনীতে উপজেলা দিবস এ জাতীয় পার্টির বর্ণাঢ্য র‍্যালি ও আলোচনা সভা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য নজির ফেনীতে এক আঙ্গীনায় মসজিদ -মন্দির, সম্প্রীতির উজ্জ্বল নিদর্শন